follow us at instagram
Tuesday, September 22, 2020

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করুন প্রতিদিনের খাবার তালিকা থেকে

পুষ্টিবিদদের মতে,শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার অনেকটাই আসে দৈনন্দিন খাবারের হাত ধরে।
https://taramonbd.com/wp-content/uploads/2020/04/dec-4th.1.jpg
Image Source: inlifehealthcare.com
করোনা ভাইরাস ঠেকাতে বার বারই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা জোর দিচ্ছেন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার উপর। যেহেতু করোনাভাইরাসকে কাবু  করার জন্য এখনও তেমন কোনও প্রতিষেধক বা ঔষধ আবিস্কার হয়নি তাই এই ভাইরাসের আক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার উপর অনেরকটা ভরসা করতে হচ্ছে আমাদের।
পুষ্টিবিদদের মতে, শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার অনেকটাই আসে দৈনন্দিন খাবারের হাত ধরে। এর মাঝে কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন, ফ্যাট সবরকম খাবারই রাখতে হবে দৈনন্দিন খাবার তালিকায়। দুগ্ধজাত ও দানা জাতীয় সবজির মধ্যে অ্যান্টিইনফ্লামেটরি উপাদান বেশি থাকে বলে তাও শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।
কি কি খাবার রাখবেন রোজ খাবার পাতে
  • দেশি ঘি ও মধু খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন। এগুলি যদি খাঁটি হয় তা হলে রোগ প্রতিরোধে খুব সাহায্য করে।
  • প্রাণীজ ও উদ্ভিজ্জ প্রোটিন খাবার চেষ্টা করুন। ডাল, দানাশস্য জাতীয় খাবার,সিমের বিচি যেমন উপকার করবে, তেমনই  পাতে থাক সুসিদ্ধ মাংস, মাছ ও ডিম।
  • হাফ বয়েল ডিম বা পোচ নয়, বরং সম্পূর্ণ সিদ্ধ করা ডিম বা অমলেট রাখুন খাদ্যতালিকায়। ডিমে রয়েছে পর্যাপ্ত ভিটামিন ডি যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।
  • লবণ ছাড়া বাদাম, আমন্ড ও অঙ্কুর বের হওয়া ছোলা খেতে পারেন বিকেলের নাস্তায়।
  • সজনে ডাঁটা ও সজনে ফুল এই আবহাওয়ায় ভাইরাস ঠেকাতে খুবই কার্যকর। তাই চেষ্টা করতে হবে প্রতিদিন খাবারের মেন্যুতে এদের রাখতে।
  • টক দই, সবুজ শাকসব্জি  বিশেষ করে পালংক শাক, ব্রকলি, পাতাকপি ও ফলে যেমন কমলা,আমলকীতে প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট থাকে। এসব খাবার রোজ খাবার চেষ্টা করতে হবে।
  • ভাত খাওয়ার অভ্যাস না থাকলে পথ্য হিসেবেই পাতে যোগ করতে পারেন লাল বাদামী বা কালো চাল। এই ধরনের চালে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টের পরিমাণ বেশি থাকে।
  • খেজুর খেলে শরীরে রোগ প্রতিরোধ বাড়ে। প্রতিদিন খেজুর খেলে শরীর বিষমুক্ত থাকে।
  • কালিজিরাকে বলা হয় সব রোগের মহাঔষধ। যে কোনো খাবারেই যোগ করুন কালিজিরা। উপকার পাবেন।
  • সামুদ্রিক মাছ রাখতে পারেন খাবার পাতে। ওমেগা থ্রি সমৃদ্ধ সামুদ্রিক মাছ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।
  • হলুদের রয়েছে অনেক ঔষুধি গুণ। গবেষণায় এসেছে কাঁচা রয়েছে কারকুমিন নামক  হলুদে রয়েছে এক প্রকার অ্যান্টঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ উপাদান যা রোগ প্রতিরোধে ভূমিকা রাখে।
  • রোজ কাঁচা রসুন খেলে ভাইরাস,ব্যাকটেরিয়া,ছত্রাক থেকে মুক্তি কারণ রসুনে রয়েছে  অ্যান্টঅক্সিডেন্ট, সেলিনিউম সহ বেশ কয়েকটি উপাদান যা রোগ প্রতিরোধে সহায়তা করে।
  • কাঁচা আদায় রয়েছে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিকারী বিভিন্ন উপাদান। রান্নায় আদা ব্যবহার বাড়ানোর সাথে সাথে চেষ্টা করুন দিনে দু’একবার আদা দিয়ে রং চা খাওয়ার।
  • খেতে পারেন গ্রিন টি,ব্ল্যাক টি আর ব্ল্যাক কফি। যা আপনার শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে বাড়াবে।
  • আপেল সাধারণ সর্দি কাশিকে দূরে রাখে।আপেলে থাকা ফাইটোকেমিক্যাল অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় ও ক্রনিক রোগকে দূরে রাখে তাই বলা হয় প্রতিদিন একটি আপেল খেলে তা আপনাকে চিকিৎসক থেকে দূরে রাখবে।
  • ভিটামিন ই সমৃদ্ধ কাঠবাদাম যা একটি শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এ খাবারটা খেতে পারেন রোজ।এটি ঠান্ডা জনিত সমস্যা কমায়,কাশি প্রতিরোধে সহায়তা করার পাশাপাশি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়ায়।
  • মিষ্টি আলুতে রয়েছে বিটা ক্যারোটিন যা ভাল মানের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। তাই খাবারের তালিকায় রাখা উচিৎ এ খাবারটিও।
  • ডার্ক চকলেটের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। খেতে পারেন মাঝে মাঝে এই খাবারটিও।
  • মুরগির স্যুপ খেতে পারেন। এটি শ্বাসনালীর কষ্ট দূর করে গলার খুসখুসে ভাব কমিয়ে দেয়।
  • শরীরের প্রয়োজন বুঝে প্রতি দিন পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি পান করুন।
  • উচ্চমাত্রার তাপে বেশি সময় ধরে রান্না করে সুসিদ্ধ খাবার খান। বিশেষ করে ডিম, মুরগি, সামুদ্রিক মাছ ইত্যাদি।
এসব তো হলো কোন খাবারগুলো করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে। এবার আসা যাক কোন খাবারগুলো থেকে দূরে থাকবেন-
  • ধূমপানের অভ্যাস থাকলে আজই বাদ দিন। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নষ্ট করে ফেলে এই অভ্যাস।
  • অ্যালকোহল খাবার জন্য নয় ব্যবহার করুন হাত পরিস্কারের জন্য। এই অভ্যাসকে এখনই না বলুন
  • কোমলপানীয়কে এখনই না বলুন। এসব পানীয় শরীরের ক্ষতি ছাড়া আর কোনো কাজেই লাগে না।
  • ফাস্টফুড,জাঙ্কফুড এড়িয়ে চলুন কিছুদিন। কারণ এসব খাবারের খাদ্যমান যেমন খুব ভাল নয় তেমনি এসব খাবার সবসময় পরিস্কার পরিচ্ছন্ন জায়গায় তৈরি হয় তাও কিন্তু নয়। তাই এসব খাবার থেকে দূরে থাকুন।
  • রাস্তার পাশের ফুচকা, চটপটি, ভেলপুরি, ঝালমুড়ি,আচার, গোলা এসব খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। এসব খাবার খাওয়া মানেই এখন নিজের বিপদ নিজেই ডেকে আনা।
করোনা থেকে নিজে ও সবাইকে দূরে রাখতে এসব খাবারের দিকে বিশেষ নজর দিন। আর যে সব খাবার খাওয়া ঠিক নয় তা থেকে দূরে থাকুন। মনে রাখবেন প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধই উত্তম। নিজে সচেতন থাকুন বাকিদের সচেতন করুন। আর আসুন সবাই মিলে করোনা প্রতিরোধে একে অপরকে সহায়তা করি।
তথ্যসুত্রঃ ইনহেলথকেয়ার ডটকম, নিউইয়র্ক টাইমস। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *