follow us at instagram
Tuesday, August 11, 2020

বিসিএসে প্রশাসন ক্যাডারে একসাথে দুই বোন সুপারিশপ্রাপ্ত

৩৮ তম বিসিএসে প্রশাসন ক্যাডারে সুপারিশপ্রাপ্ত হয়েছেন দুই আপন বোন।
https://taramonbd.com/wp-content/uploads/2020/07/resize1593670872896.jpg
Image Source: thecampustoday.com

৩৮ তম বিসিএস এর ফল প্রকাশের সাথে  সামনে এসেছে দুই নারী নক্ষত্রের। একজন ফাতেমাতুজ জোহরা চাঁদনী আর অপরজন তারই সহোদরা সাদিয়া আফরিন তারিন। দুজনই ৩৮তম বিসিএস পরীক্ষায় প্রশাসন ক্যাডারে চূড়ান্ত সুপারিশপ্রাপ্ত হয়েছেন। দুই বোনই  সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (শাবিপ্রবি) থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেছেন। সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার সদর ইউনিয়নের ছোটদেশ গ্রামের ঐতিহ্যবাহী পরিবারের অবসারপ্রাপ্ত এমবিবিএস চিকিৎসক ডাঃ শামসুল ইসলাম চৌধুরীর দুই মেয়ে হলেন চাঁদনী ও তারিন।

ডাঃ শামসুল ইসলাম চৌধুরীর বড় মেয়ে ফাতেমাতুজ জুহরা চাঁদনী সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজিতে অনার্স, মাস্টার্স সম্পন্ন করেন, অপর মেয়ে সাদিয়া আফরিন তারিন একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিজনেস স্টাডিতে বিবিএ ও এমবিএ সম্পন্ন করেন। ফাতেমাতুজ জোহরা চাঁদনী কানাইঘাট সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষিকা হিসেবে কর্মরত আছেন।

স্কুল জীবন থেকে অত্যন্ত মেধাবী এই দুই বোন উচ্চ পর্যায়ে অধ্যয়নতরত থাকা অবস্থায় শিক্ষামূলক বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে সাফল্য বয়ে এনে কানাইঘাটবাসীর মুখ উজ্জ্বল করেছেন।এলাকার জনগণের মুখে মুখে এখন এই দুই বোনের সাফল্যগাথা।

সিভিল সার্ভিসে কানাইঘাট উপজেলা থেকে ৩৮ তম বিসিএস পরীক্ষায় (এডমিনিস্ট্রেশন) উত্তীর্ণ ফাতেমাতুজ জুহরা চাঁদনী ও সাদিয়া আফরিন তারিন সুপারিশপ্রাপ্ত হওয়ায় এলাকার লোকজন আনন্দিত হয়েছেন। তাদের এমন সাফল্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে অভিনন্দনও জানিয়েছেন অনেকে। অপরদিকে তাদের ছোট বোন মেধাবী সামিয়া প্রীতিও শাবিপ্রবিতে অধ্যয়নরত আছেন।

এদিকে দুই মেয়ের বিসিএস ক্যাডারে সুপারিশপ্রাপ্ত হওয়ায় তাদের গর্বিত পিতা কানাইঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অবসারপ্রাপ্ত আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ শামসুল ইসলাম চৌধুরী তাদের উজ্জ্বল ভবিষ্যতের জন্য সকলের কাছে দোয়া চেয়েছেন।

বিসিএস পরীক্ষায় তাদের এ সাফল্যে খুশি হয়েছেন পরিবারের সদস্য ও এলাকাবাসীরা।

এমন সাফল্য আমাদের শুধু আনন্দই দেয় তা নয় সাফল্যের লক্ষ্যে একাগ্রভাবে কাজ করে গেলে একদিন তা ধরা দেবে সেটাও বুঝিয়েছে এই দুই বোন।এমন সন্তান বাবা মায়ের সাথে সাথে নিজের এলাকার নামও উজ্জ্বল করেছে। তাদের প্রতি এবং তাদের রত্নগর্ভা মা ও বাবার প্রতি তারামন পরিবারের পক্ষ থেকে রইলো শুভকামনা।

তথ্যসূত্রঃ দ্য বাংলাদেশ টুডে, দ্য ডেইলি ক্যাম্পাস। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *